বুধবার, ১৯ এপ্রিল, ২০১৭

হারাধনীর সংসার ~ অরুণাচল দত্তচৌধুরী



হারাধনীর তেরোটা ভাই হাতিয়েছিল টাকা 
সবার চিত্র ফুটেজ করে রেখেছে হুল কাকা। 

টাকা দারুণ মুখরোচক, এবং উপাদেয়
কাজে কাজেই…  দেশের জন্য…  দু'হাত মেলে চেয়ো। 

হাপুসহুপুস গিলবি টাকা, ভরিয়ে ফেলে অন্ত্র।   
বদহজমটি ঘটলে রটাস… এ'সব ষড়যন্ত্র। 

দেশের সেবা? সবাই জানে ওইটি উপলক্ষ্য। 
অর্থ উপার্জনেই লেখা রাজনৈতিক মোক্ষ। 

পড়লে ধরা করবি প্রচার…  ভিডিও সব জাল 
যদ্দিন না কাবার্ড থেকে বেরোচ্ছে কঙ্কাল। 

এবং তখন পাল্টাবি সুর… সবাই নাকি জানত 
উৎকোচ নয়, এ'সব টাকাই নিছক অনুদান তো। 

কে নেই সামিল? মন্ত্রী-সান্ত্রী। মহামহিম নেতাও।  
হারাধনীর আদেশ ছিল দলকে ভোটে জেতাও। 

কেউ গিলেছেন টাওয়েল মুড়ে প্রাতরাশের বেলায় 
বন্দরে এক হাঙর খাচ্ছে দারুণ অবহেলায়। 

ফিজিক্স-টিচার গিলছে টাকা।  মুখে কি? লজ্জাই।   
বেজায় কেতার একটি নেতার ও'সব বালাই নাই। 

ভীতুর চিন্তা… বিষবৃক্ষের ফলটি এ'বার ফলবে। 
আশায় থাকে, মিছিল করে দল যা' বলার বলবে। 

তাদের সাফাই দল জানে সব। আমরা নিছক সভ্য। 
অন্যে বলে কোর্ট কাছারি… করব না মন্তব্য। 

অপরূপ এক মিচকে চেঁচায়… ভুল করেছিস অঙ্কে 
ভুললি কেন করিতকর্মা দুই দু'খানা বোনকে? 

একখানি ভাই আমলা-কোটাল, বিশাল নাকি মাইনে, 
হাই তুলে কয়, ঘুষ পেলে আর অন্য কিছুই চাইনে। 

নাচিয়ে ভুরু এক ভাই কয় ব্যাপার ভারি আইনি। 
সেটিং হলেই প্রমাণ হবে, আমরা কিছু খাইনি।  

নারদ নারদ… সামনে গারদ। হারাধনীর চিন্তা … 
সংখ্যাটা ওই তেরোই…  নাকি বাড়বে পরের দিন তা?